মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C

রামকৃষ্ণ আশ্রম, বাগেরহাট

ইতিপূর্বে ১৮৯৫ সালে ইংল্যান্ডে স্বামী বিবেকানন্দের সঙ্গে ক্যাপ্টেন জেমস হেনসি সেভিয়ার ও তাঁর স্ত্রী শার্লট এলিজাবেথ সেভিয়ারের আলাপ হয়। ক্যাপ্টেন সেভিয়ার পাঁচ বছর ব্রিটিশ ভারতীয় সেনাবাহিনীতে কাজ করেছিলেন।[৯] ১৮৯৬ সালে নয় মাস সেভিয়ার-দম্পতি স্বামী বিবেকানন্দের সঙ্গে সুইজারল্যান্ড, জার্মানি ও ইতালি ভ্রমণ করেন। তাঁদের সঙ্গে আল্পস পর্বতমালায় ভ্রমণের সময় স্বামী বিবেকানন্দের মনে ভারতে অনুরূপ একটি স্থানে বেদ-চর্চার কেন্দ্র স্থাপনের ইচ্ছা জাগে।[১০] তাই ১৮৯৬ সালের ডিসেম্বর মাসে সেভিয়ার-দম্পতি স্বামী বিবেকানন্দের সঙ্গে ইতালির নেপলস থেকে একটি স্টিমারে চড়ে সোজা ভারতে চলে আসেন। তাঁদের লক্ষ্য ছিল আলমোড়ার কাছে কোনো একটি জায়গা খুঁজে নিয়ে আশ্রম স্থাপন করা।[১১] ১৮৯৭ সালের ফেব্রুয়ারিতে তাঁরা মাদ্রাজে এসে পৌঁছান।[১২] এরপর বিবেকানন্দ কলকাতা অভিমুখে যাত্রা করেন, সেভিয়ার-দম্পতি যান আলমোড়ায়। সেখানে একটি বাংলো ভাড়া করেন।[১৩] পরের দুই বছর সেভিয়ার-দম্পতির সঙ্গে স্বামী বিবেকানন্দও এই বাংলোয় বাস করেছিলেন। বিবেকানন্দ যখন কাশ্মীর ভ্রমণে গিয়েছিলেন, সেই সময় সেভিয়ার-দম্পতি বিবেকানন্দের সন্ন্যাসী-শিষ্য স্বামী স্বরূপানন্দকে নিয়ে উত্তরাখণ্ডের পার্বত্য অঞ্চলে আশ্রমের উপযুক্ত স্থান নির্বাচনে বের হন। ১৮৯৮ সালের জুলাই মাসে তাঁরা একটি জায়গার সন্ধান পান। জায়গাটি সেই সময় ছিল একটি চা-বাগানের অংশ। এখানেই ঘন দেবদারু, পাইন ও ওক বনের মধ্যে স্বামী স্বরূপানন্দের সাহায্যে আশ্রম স্থাপিত হয়।[১৪] একই সময় কলকাতায় বেলুড় মঠ স্থাপিত হয়েছিল।[১৫]

১৮৯৮ সালের মাঝামাঝি মাদ্রাজে প্রবুদ্ধ ভারত পত্রিকার সম্পাদকের অকালমৃত্যুতে পত্রিকাটির প্রকাশনা বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। স্বামী বিবেকানন্দের অনুরোধে সেভিয়ার দম্পতি পত্রিকাটি পুনরুজ্জীবনে এগিয়ে আসেন। স্বামী স্বরূপানন্দকে পত্রিকার সম্পাদক নিযুক্ত করা হল। ১৮৯৯ সালের ১৯ মার্চ, রামকৃষ্ণ পরমহংসের জন্মদিনে স্বরূপানন্দকেই আশ্রম-প্রধান করে আনুষ্ঠানিকভাবে চালু হল অদ্বৈত আশ্রম।[১৬] ১৯০৬ সালে মৃত্যুর আগে পর্যন্ত স্বরূপানন্দ এই যুগ্ম দায়িত্ব পালন করেছিলেন।[১৭][১৮][১৯]

আশ্রম প্রতিষ্ঠার সময় ১৮৯৯ সালের মার্চ মাসে স্বামী বিবেকানন্দ একটি চিঠিতে আশ্রমের উদ্দেশ্য ব্যাখ্যা করে লেখেন: "...To give this ONE TRUTH a freer and fuller scope in elevating the lives of individuals and leavening the mass of mankind, we start this Advaita Ashrama on the Himalayan heights, the land of its first expiration.

Here it is hoped to keep Advaita free from all superstitions and weakening contaminations. Here will be taught and practised nothing but the Doctrine of Unity, pure and simple; and though in entire sympathy with all other systems, this Ashrama is dedicated to Advaita and Advaita alone." [২০]

১৯০০ সালের ২৮ অক্টোবর ক্যাপ্টেন সেভিয়ারের মৃত্যু হয়। তাঁর শেষ ইচ্ছা অনুযায়ী, স্থানীয় সারদা নদীর তীরে তাঁকে হিন্দু মতে দাহ করা হয়।[১০][১৭] শোকাতুরা শ্রীমতী সেভিয়ারকে সান্ত্বনা দিতে ১৯০১ সালের ৩-১৮ জানুয়ারি স্বামী বিবেকানন্দ আশ্রমে অবস্থান করেন।[২১][২২] ক্যাপ্টেন সেভিয়ারের থাকার জায়গাটি গ্রন্থাগারে পরিণত করা হয়।[১৪] শ্রীমতী সেভিয়ারও বেশ কয়েক বছর সেই আশ্রমে বাস করেছিলেন।